আত্মবিশ্বাস কোনো ধর্ম হলে, রোনালদো সেটির ঈশ্বর!

রোনালদো বরাবরই চ্যালেঞ্জ নিতে পছন্দ করেন। আর এই চ্যালেঞ্জ নিতে তাকে শক্তি জোগায় তার দৃঢ় আত্মবিশ্বাস; তার আরেকটি গুণ আমাকে মুগ্ধ করে। সেটি হলো তিনি যা বলেন, তা করে দেখান। যত দূর মনে পড়ে ২০১৩ সালে বায়ার্নের কাছে হারার পর রিয়াল মাদ্রিদের ভক্তদের উদ্দেশে বলেছিলেন, ‘আমার কাছে আপনাদের অন্তত একটি চ্যাম্পিয়নস লিগ ফাইনাল পাওনা আছে!’ পরের বছর ঠিকই এক সিজনে সর্বোচ্চ ইউসিএল গোল (১৭) করে চ্যাম্পিয়নস লিগ জিতেছিলেন, যে গোলের রেকর্ড কেউ ভাঙতে পারেনি।
২০১৬ সালে চ্যাম্পিয়নস লিগে উলফসবার্গের কাছে ২-০তে হারার পর বলেছিলেন, ‘দ্বিতীয় ম্যাচে আপনাদেরকে আমি একটা ম্যাজিক্যাল নাইট উপহার দেব!’ ঠিকই হ্যাটট্রিক করে ৩-০তে রিয়াল মাদ্রিদকে জিতিয়ে পরের রাউন্ডে তুলে দিয়েছিলেন! ঐ বছর ট্রফিটাও জিতেছেন!
২০১৯ সালে অ্যাটলেটিকোর কাছে জুভেন্টাস ২-০ গোলে হারার পর সিমিওনে বলেছিলেন, ‘রোনালদো যদি আগের মতো জেতাতে পারে, তা হলে আমি তরমুজ বিক্রি করব!’ রোনালদো তখন তার পুরো পরিবারকে স্টেডিয়ামে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন এই বলে, ‘আবার আরেকটা ম্যাজিক্যাল নাইট আসতে যাচ্ছে!’ তার পরের ইতিহাস তো সবারই জানা! রোনালদো তার কথা রাখতে পেরেছিলেন। রোনালদোর হ্যাটট্রিকোর সুবাদে জুভেন্টাস ৩-০ গোলের ব্যবধানে অ্যাটলেটিকোকে হারায়, যদিও সেবার ট্রফি জেতা হয়নি!
ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে যোগদান করার সময় সে এতটা চিকন ছিলেন, জার্সি তার গায়ে ঢলঢলে হতো। সবাই তাকে ‘স্কিনি’ বলত! রোনালদো রেগে গিয়ে বলেছিলেন, ‘একদিন আমি এমন বডি বানাব, সবাই তাকিয়ে দেখবে!’ এখন বড় বড় কোম্পানি তাকে মডেল হিসেবে নিয়ে যায়!
আমার জানা মতে, ২০১৬ ইউরোর আগে পর্তুগালের প্রেসিডেন্ট রোনালদোর কাছে বলতে গেলে আবদারই করেছিলেন, এবারের ট্রফিটা এনে দিতে! রোনালদো তাকে ভরসা দিয়ে নিশ্চিন্ত থাকতে বলেছিলেন! পরেরটা তো ইতিহাস! পর্তুগালের ফুটবল ইতিহাসের প্রথম আন্তর্জাতিক ট্রফি জয়। ফাইনাল পর্যন্ত তো রোনালদোই তুলে দিয়েছেন, ফাইনালে ইঞ্জুরড হওয়ার পরও দলকে ভরসা জুগিয়েছেন। যেখানে জয়সূচক গোল করা এডার পর্যন্ত বলেছেন, ‘রোনালদো যখন আমাকে বলেছিল জয়সূচক গোলটা আমার পা থেকে আসবে, তখন আমি মনে শক্তি পেয়েছিলাম। বিশ্বাস করতে শুরু করেছিলাম, হ্যাঁ আমি পারবই!’
একটা লোক মুখে যা বলেছেন, সেটা তিনি বারবার করে দেখিয়েছেন! ক্যান ইউ ইমাজিন দ্যাট? আত্মবিশ্বাস কোনো ধর্ম হলে, রোনালদো সেটির ঈশ্বর!